সহজ কিস্তিতে বড় লোন নিন মাত্র ৫ দিনে |সহজ কিস্তিতে লোন এখানে

আসসালামু আলাইকুম আশা করছি সকলে ভালো আছেন, আজকের পোস্টে আপনাদেরকে জানাবো সহজ কিস্তিতে লোন নেওয়ার পদ্ধতি, কম সুদের হারে লোন, এছাড়াও লোন সম্পর্কিত সকল তথ্য যে তথ্যগুলি একজন লোন গ্রাহকের লোন নেওয়ার পূর্বে অবশ্যই জানা দরকার।তো চলুন শুরু করা যাক।

ব্যাংক লোন কি?

শুরুতেই আমরা জানবো যে ব্যাংক লোন কি? সহজ বাংলা ভাষায় বললে ব্যাংকের মাধ্যমে আপনি কিস্তিতে অর্থাৎ সাপ্তাহিক, প্রতিদিন, মাসিক, বাৎসরিক আকারে টাকা প্রদান কর।

অর্থাৎ একটি ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান থেকে একবারে আপনি টাকা উত্তোলন করা এবং প্রতিদিন৷ বা প্রতি সপ্তাহে বা প্রতি বছরে তাদের শর্ত অনুযায়ী টাকাগুলি পরিশোধ করায় ব্যাংক লোন।

সহজ কিস্তিতে লোন কি?

কিস্তি শব্দের অর্থ ভেঙ্গে ভেঙ্গে টাকা দেওয়া। অর্থাৎ আপনি কোন প্রতিষ্ঠান থেকে একবারে আপনার প্রয়োজনীয় টাকা উত্তোলন করে তা আস্তে আস্তে সাপ্তাহিক অথবা মাসিক আকারে পরিশোধ করার নামই কিস্তি।

আপনার জন্য-বিকাশে টাকা ভুল নাম্বারে চলে গেলে কিভাবে ফেরত আনবেন?

আর এই কিস্তি যদি আপনার লোন এর সহজ হয় তাহলে সেটি আমাদের জন্য অনেক ভালো হবে। তাই আমাদের মধ্যে বর্তমানে অনেকেই রয়েছে যারা সহজ কিস্তিতে লোন খুঁজে থাকেন। আসলে সহজ কিস্তিতে লোন বুঝায় ধরুন আপনি এমন কোন প্রতিষ্ঠান থেকে লোন উত্তোলন করলেন যার সুদের হার খুবই কম থাকবে এবং খুব সহজেই সহজ নিয়ম ভিত্তিতে আপনি পরিশোধ করতে পারবেন তাই সহজ কিস্তিতে লোন। আমরা আরো পরিষ্কারভাবে বিষয়টি নিচে বুঝিয়ে বলবো।

সহজ কিস্তিতে লোন

এখন আমরা আমাদের মূল পোষ্টের মূল টপিক সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো ইনশাল্লাহ। বর্তমানে মানুষের চাহিদা বৃদ্ধির সাথে সাথে প্রত্যেকটি লোন প্রতিষ্ঠানগুলি তাদের মনে সুদের হার এত অধিক পরিমাণ করেছে যে এখন আমাদের মত সাধারন উদ্যোক্তা অথবা সাধারণভাবে জীবন যাপন করা মানুষগুলি তাদের প্রয়োজনে কোনভাবেই লোন গ্রহণ করতে পারছেনা।

তাই আমাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছি যারা সহজ কিস্তিতে লোন পরিশোধ করে লোন উত্তোলন করতে চাই কিন্তু এই সকল প্রতিষ্ঠানের সম্পর্কে বা তাদের নাম না জানার ফলে আমরা বিভিন্ন ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান থেকে অধিক হারে সুদ দিয়ে
লোন গ্রহণ করছি।

তাই এখন আমি নিচে আপনাদেরকে এমন কিছু ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে দিব যে ব্যাংকগুলি থেকে আপনি মাত্র ১০% এরো নিচে সুদের হার দিয়ে অধিক পরিমাণে লোন উত্তোলন করতে পারবেন তাও আবার মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যে। তো চলুন এমন সকল প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জেনে নিন –

  • রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংক।
  • বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক।
  • বিদেশি হাবিব ব্যাংক।
  • সিটি ব্যাংক এনএ।
  • কমার্শিয়াল ব্যাংক অব সিলন।
  • ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান।
  • ওয়ারি ব্যাংক।
  • এইসএসবিসি।
  • ব্যাংক আলফালাহ লিমিটেড।
  • আইসিবি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড।

উপরের এই ১০ টি ব্যাংকের ও বাহিরে আরো অনেক ব্যাংক রয়েছে যারা ১০% এর নিচে সুদের হার গ্রহণ করে তারা লোন প্রদান করে থাকেন।

আমি আপনাদেরকে নিচে আরও কিছু বাংলাদেশী এই সকল ব্যাংকের নাম দিয়ে দিচ্ছি –   

  • সিটি ব্যাংক
  • ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক   
  • পূবালী ব্যাংক 
  • সীমান্ত ব্যাংক 
  • ইস্টার্ন ব্যাংক 
  • এনসিসি ব্যাংক
  • প্রাইম ব্যাংক
  • সাউথইস্ট ব্যাংক
  • ঢাকা ব্যাংক
  • আল আরাফা ইসলামী ব্যাংক  
  • ডাচ-বাংলা ব্যাংক 
  • মার্কেন্টাইল ব্যাংক
  • স্টান্ডার্ড ব্যাংক 
  • বিসিবিএল
  • ব্যাংক এশিয়া 
  • ট্রাস্ট ব্যাংক
  • শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক 
  • যমুনা ব্যাংক
  • আইসিবি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড

উপরের এই সকল প্রত্যেকটি ব্যাংকগুলিতে আপনি যদি লোন গ্রহণ করে থাকেন তাহলে আপনি ১০ শতাংশের নিচে সুদের হারে লোন গ্রহণ করতে পারবেন

আশা করছি আপনি যদি এই সকল ব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন সঠিকভাবে তাহলে আপনি কিন্তু সহজ কিস্তিতে লোন উত্তোলন করতে পারবেন।

তবে বলে রাখা ভালো যে, প্রত্যেকটি ব্যাংকে আপনি যখন লোন উত্তোলন করতে যাবেন তখন কিন্তু বিভিন্ন শর্ত জুড়ে আপনাকে দেয়া হবে। এজন্য আপনি অবশ্যই যে ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান থেকে লোন উত্তোলন করবেন। তাদের সঙ্গে আপনি প্রত্যেকটি বিষয়ে খুটিনাটি জিজ্ঞেস করে নিবেন। তা না হলে আপনি পরবর্তীতে কিন্তু বিপদগ্রস্থ হতে পারেন অর্থাৎ আপনাকে প্রচুর পরিমাণে কিন্তু সুদের হার আপনাকে প্রদান করতে হতে পারে।

👉গুগল নিউজে সবার আইটি বিডি সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন

অনেক সময় এরকম হয় যে, আমাদের লোন প্রয়োজন পড়ে পারিবারিক ভাবে বা ব্যবসায়িকভাবে বা ব্যক্তিগতভাবে তখন আমরা আক পিছ না ভেবে যে কোন ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে আমাদের লোনের চাহিদার কথা বলে থাকি।তখনই কিন্তু আপনার এই অসুবিধার কথা শুনে তারা বিভিন্ন ধরনের শর্ত জুড়ে দিয়ে বসে তখন আমরা আমাদের প্রয়োজন মেটানোর জন্য আক পিস না ভেবে তাদের প্রত্যেকটি শর্ত সম্পর্কে বিস্তারিত না জিজ্ঞেস করে না জেনে না বুঝে আমরা লোন উত্তোলন করতে চাওয়ার জন্য রাজি হয়ে যাই।

এছাড়াও তারা বিভিন্ন রকম ডকুমেন্টস এর জটিলতার মধ্যেও আমাদেরকে ফেলে দেয় যার ফলে পরবর্তীতে আমাদের এই ডকুমেন্টগুলো কালেক্ট করতেও অনেক অর্থ ব্যয় হয়ে যায়। তাই অবশ্যই আমি ব্যক্তিগতভাবে আপনাদেরকে পরামর্শ দেবো।সহজ কিস্তিতে লোন উত্তোলন করার পূর্বে অবশ্যই সেই প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংকে আপনি সহজ কিস্তিতে লোন উত্তোলন করতে চাচ্ছেন সে বিষয়ে অবগত করবেন।

পাশাপাশি তাদের প্রত্যেকটি বিষয়ে আপনি জানার চেষ্টা করবেন। জেনে রাখবেন আপনার লোন যেমন প্রয়োজন ঠিক তেমনি সেই প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংক গুলির লোন আপনাকে প্রদান করাও তাদের প্রয়োজন। তাই তাড়াহুড়ো করে আপনার চাহিদা মিটাতে গিয়ে বিপদগ্রস্ত অবস্থায় পড়বেন না।

সহজ কিস্তিতে লোন মোবাইল দিয়ে

বর্তমানে আপনি চাইলে সহজ কিস্তিতে মোবাইল ফোন দিয়ে বিকাশ কোম্পানি থেকে আপনি লোন নিতে পারবেন। অর্থাৎ বিকাশ মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমেও আপনি কিন্তু সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত লোন নিতে পারবেন।

বর্তমানে সহজ কিস্তিতে লোন এই কথা বললে প্রথমে বিকাশ মোবাইল কোম্পানির সিটি ব্যাংকের এই লোনের কথা এসে যায়। আপনারা জানেন যে বর্তমানে ম্যাক্সিমাম মানসী কিন্তু বিকাশ মোবাইল অ্যাপস বা বিকাশ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা ব্যবহার করে থাকেন। আর তারই ধারাবাহিকতায় বিকাশ মোবাইল ব্যাংকিং লোনের মাধ্যমে সহজ কিস্তিতে পরিশোধ করে আপনি সর্বোচ্চ 20 হাজার টাকা পর্যন্ত ও লোন নিতে পারবেন।

বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার সুবিধা


বিকাশ থেকে আপনি লোন নিলে আপনার কোন ধরনের ডকুমেন্টের সনের ঝামেলা নেই।

বিকাশ থেকে লোন নিলে আপনি তিন মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন সুদ দিয়ে এই এমাউন্টটি নিতে পারবেন।

বিকাশ থেকে লোন নেওয়া আরো অনেক ধরনের সুযোগ-সুবিধা হচ্ছে আপনার ইচ্ছেমত আপনি পরিশোধ করতে
পারবেন।
এছাড়াও বিকাশ থেকে লোন নেওয়ার আপনি পরিশোধ করার সঙ্গে সঙ্গে পরবর্তী লোন উত্তোলন করতে পারবেন।

পরিশোধ করার ক্ষেত্রে কোন ধরনের ঝামেলা নেই মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমেই ঘরে বসে পরিশোধ করতে পারবেন।
মাসিক কিস্তির মাধ্যমে লোন পরিশোধ করার জন্য অন্য কোন ঝামেলা নেই।

সহজ কিস্তিতে লোন বিকাশের মাধ্যমে কিভাবে নিবেন   

  • প্রথমে আপনার একটা বিকাশ একাউন্ট তৈরি করে নিতে হবে।
  • এরপরে আপনার স্মার্ট মোবাইল ফোনে বিকাশ অ্যাপ্লিকেশনে আপনার একাউন্টে এক্টিভ করতে হবে।
    এরপরে বিকাশের অন্যান্য অপশন গুলোর মধ্যে “লোন” অপশন বলে একটি অপশন দেখতে পাবেন তার মধ্যে প্রবেশ করবেন।
    সেখানে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে আপনার লোন অ্যামাউন্ট টি তারা কত দিবে সে এমাউন্টি শো করবে।
    সেখান থেকে তাদের শর্তের উপরে টিপ মার্ক দিয়ে আপনি লোনের জন্য আবেদন করবেন।        
  • সঙ্গে সঙ্গে তারা ১০ মিনিটের মধ্যে আপনার বিকাশ একাউন্টে তাদের সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত লোন প্রদান আপনাকে করবে।

বলে রাখা ভালো যে, বিকাশ মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে লোন নিতে হলে আপনাকে বিকাশে আর প্রচুর পরিমাণে কিন্তু লেনদেন করতে হবে। এই লেনদেনের উপর ভিত্তি করে বিকাশ কোম্পানি এই অপশনটি আপনার বিকাশ মোবাইল অ্যাপস চালু করে দিবে। অর্থাৎ যে কেউ চাইলে কিন্তু এই রং গ্রহণ করতে পারবে না। আশা করছি বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন।

সহজ কিস্তিতে লোনের ক্ষেত্রে সতর্কতা

বর্তমানে অনেক ডিজিটাল মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন এবং ওয়েবসাইটে সহজ কিস্তিতে লোন দেওয়ার কথা বলে অনেকেই
প্রতারণ করছে। তাই যেখান থেকেই লোন গ্রহণ করুন না কেন অবশ্যই সাবধানতা অবলম্বন করবেন।

সহজ কিস্তিতে লোন সম্পর্কিত কিছু প্রশ্ন উত্তর

আসলেই কি সহজ কিস্তিতে লোন পাওয়া যায়?

জি হ্যাঁ। আপনি যদি সঠিক প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংক সম্পর্কে জানেন তাহলে সহজ কিস্তিতে এখনো পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান লোন প্রদান করে থাকেন।

বর্তমানে ব্যাংকগুলি লোন সুদের হার কত?

লোন সুদের হার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংক অনুযায়ী নির্ধারণ করা হয়ে থাকে।তবে বর্তমানে ম্যাক্সিমাম ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠানগুলি 10 থেকে 16% পর্যন্ত সুদের হারে লোন প্রদান করে আসছে।

দশ শতাংশের নিচে কি কোন প্রতিষ্ঠান আছে লোন প্রদান করে থাকে?

জি ১০ শতাংশের নিচে অনেক ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান বর্তমানে রয়েছে যারা লোন প্রদান করে আসছে।

শেষ কথা –আমি আপনাদেরকে আবারো আমি ব্যক্তিগতভাবে অনুরোধ করব।যত ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান আপনাকে
সহজ কিস্তিতে লোন প্রদান করার কথা বলে থাকুন না কেন এরপরেও আপনি চেষ্টা করবেন লোন মুক্ত জীবন গঠন করতে। তাতে আপনি এবং পরিবার সমাজ সকলেরই মঙ্গল। এরপরও যদি আপনার লোন প্রয়োজন পড়ে থাকে তাহলে অবশ্যই উপরোক্ত ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান থেকে সহজ কিস্তিতে লোন গ্রহণ করবেন।

বিশেষ দ্রষ্টব্য – উপরের প্রত্যেকটি তথ্য অনলাইন থেকে সংগৃহীত তাই যেকোনো ধরনের পরিবর্তন পরিবর্ধন এবং ভুল হয়ে থাকলে অবশ্যই ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। আর যদি বিন্দু পরিমান উপকৃত হয়ে থাকে তাহলে পোস্টে কমেন্টস করতে ভুলবেন না।

আপনার জন্য আরো 

Leave a Comment